অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে ২০২২ । ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাই - Online Jobs for Students

 

অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে ২০২২ । ঘরে বসে টাকা আয়

অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে ২০২২ । ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাই

অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে ২০২২ । ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাই - Online Jobs for Students in Bangladesh - কোনো অফিসে না গিয়ে ইন্টারনেটের মাধ্যমে কোনো ব্যক্তি বা কোম্পানির সাথে কাজ করাকে দূরবর্তী কাজ বা অনলাইন কাজ বলে। আপনি যেকোনো জায়গা থেকে অনলাইনে কাজ করতে পারেন। 

আপনার যা দরকার তা হল একটি কম্পিউটার এবং একটি ইন্টারনেট সংযোগ। আপনি যদি একটি নির্দিষ্ট ক্ষেত্রে দক্ষতা অর্জন করতে পারেন, তাহলে আপনি সহজেই অনলাইনে একটি সাধারণ পরিমাণ অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

 

আরো পড়ুন:

►► ফ্রি টাকা ইনকাম ২০২২

►► জীবন নিয়ে বিখ্যাত উক্তি 

►► বাংলা মাসের কত তারিখ আজ 

►►  হাত কাটা পিকচার ডাউনলোড 

চুল পড়া বন্ধ করার ঘরোয়া উপায় 

►► নতুন মোবাইল ফোনের দাম ২০২২

►► শুভ সকালের সুন্দর ছবি ও কবিতা

 

অনলাইন চাকরি তিন ধরনের চুক্তিতে হতে পারে যেমন-

I. প্রকল্প-ভিত্তিক কাজ

II। ঘন্টা ভিত্তিক কাজ, বা

III. মাসিক চুক্তিতে কাজ করুন

 

এছাড়া কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের অধীনস্থ না হয়েও অনলাইনে কাজ করা যায়। বাংলাদেশের তরুণ-তরুণীদের মধ্যে অনলাইনে চাকরির আগ্রহ দিন দিন বাড়ছে। কারণ, একটি খণ্ডকালীন অনলাইন চাকরি করার মাধ্যমে , একজন শিক্ষার্থী তার শিক্ষার ব্যয় আরও ভালভাবে চালিয়ে যেতে পারে। এছাড়াও, বর্তমানে অনেকেই অনলাইনে ফুলটাইম কাজ করছেন এবং শত শত বা হাজার হাজার ডলার আয় করছেন।

 

অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে ২০২২ 

 অনলাইন ইনকাম মোবাইল দিয়ে ২০২২ । ঘরে বসে টাকা আয় করতে চাই - Online Jobs for Students in Bangladesh

আজ, আমরা বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের জন্য সেরা কিছু দূরবর্তী চাকরি নিয়ে আলোচনা করব। একজন শিক্ষার্থী অধ্যয়নের সময় একটি অনলাইন খণ্ডকালীন চাকরির মাধ্যমে তার টিউশন এবং আনুষঙ্গিক খরচ চালিয়ে যেতে পারে। অনেক শিক্ষার্থীর পরিবারের অর্থনৈতিক অবস্থা শোচনীয় হতে পারে। এই শিক্ষার্থীদের জন্য একটি অনলাইন চাকরি একটি দুর্দান্ত বিকল্প।

একটি অনলাইন কাজ করার জন্য আপনাকে যা করতে হবে:

▪ একটি কম্পিউটার

▪ স্থিতিশীল ইন্টারনেট সংযোগ

▪ কম্পিউটার সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা

▪ ইংরেজিতে কম বা বেশি

দক্ষতা ▪ ভাল যোগাযোগ দক্ষতা

▪ যেকোনো বিশেষ অনলাইন-ভিত্তিক কাজের জন্য ভাল দক্ষতা

 

অবশ্য মোবাইল ফোনের মাধ্যমে কিছু অনলাইন কাজ করা যায়। অনলাইনে চাকরি পাওয়ার জন্য উপরের জিনিসগুলো থাকাই যথেষ্ট। তবে বৈরী আবহাওয়ার কারণে আপনার একটি ইউপিএস থাকতে হবে। বিদ্যুৎ চলে গেলে এটি পাওয়ার ব্যাকআপ নিশ্চিত করবে।

 

আপনি যত বেশি আপনার দক্ষতা বিকাশ করবেন, তত বেশি আপনি কাজ পাবেন। এবার আসা যাক কথায়। নিচে বাংলাদেশের শিক্ষার্থীদের জন্য সেরা কিছু অনলাইন চাকরি দেওয়া হল:

01. ব্লগিং

 

আজকাল অনলাইন চাকরির মধ্যে ব্লগিং একটি জনপ্রিয় এবং আদর্শ ক্ষেত্র। নিঃসন্দেহে এটি একটি লাভজনক পেশা। আপনি জানেন যে ইন্টারনেটের চাহিদা দিন দিন বাড়ছে। 

এজন্য ব্লগিং এর মাধ্যমে অর্থ উপার্জনের পথ প্রতিনিয়ত বাড়ছে। বর্তমানে অনেক শিক্ষার্থী ও গৃহিণী বাংলায় ব্লগিং করে প্রতি মাসে ৪০ থেকে ৫০ হাজার টাকা আয় করছেন।

যারা ইংরেজিতে দক্ষ তাদের আয় বেশি কারণ ইংরেজিতে ব্লগ করলে স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক বেশি দর্শক পাওয়া যায়। এর মাধ্যমে বাংলাদেশি মুদ্রায় ছয় অঙ্কের আয় করা সম্ভব। মানুষ ক্রমেই অনলাইন নির্ভর হয়ে পড়ছে। ফলে যখনই তাদের কোনো তথ্যের প্রয়োজন হয়, তারা গুগলে সার্চ করে।

 

আপনাকে যা করতে হবে তা হল একটি ওয়েবসাইট তৈরি করা এবং এটি কীভাবে বজায় রাখা যায় তা জানা। আপনার ওয়েবসাইটে যে কোনো নির্দিষ্ট বিষয়ে ব্লগিং করা যেতে পারে।

এটি বিভিন্ন টিপস, আপনার নিজস্ব মতামত বা আপনার দৈনন্দিন অভিজ্ঞতা হতে পারে। আপনি একটি নির্দিষ্ট কুলুঙ্গি নির্বাচন করে আপনার ওয়েবসাইটে নিয়মিতভাবে বিষয়বস্তু ভাগ করতে পারেন।

 

সাধারণত, বেশিরভাগ ব্লগার গুগল অ্যাডসেন্সের মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করেন । এর জন্য বিপুল সংখ্যক দর্শনার্থীর প্রয়োজন। ভালো কীওয়ার্ড রিসার্চ এবং অথেনটিক কন্টেন্টের মাধ্যমে স্ট্যান্ডার্ড ভিজিটর পাওয়া সম্ভব। আপনি যদি ব্লগিং এর মাধ্যমে আরও বেশি আয় করতে চান তবে আমি অবশ্যই আপনাকে ইংরেজিতে ব্লগ করার পরামর্শ দেব।

 

02. সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশান

গুগল, বিং এবং অন্যান্য অনলাইন অনুসন্ধান ফলাফলে কেউ পিছিয়ে থাকতে চায় না। আপনি যদি একটি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে আয় করতে চান তবে আপনার একটি বিশাল দর্শকের প্রয়োজন। সার্চ রেজাল্টে যদি কোনো ওয়েবসাইটের বিষয়বস্তু সার্চ ইঞ্জিনের প্রথম পৃষ্ঠায় না থাকে, তাহলে সেখান থেকে মানসম্পন্ন দর্শক পাওয়া কখনই সম্ভব নয়।


 একটি ওয়েবসাইটের র‌্যাঙ্কিং বাড়াতে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের কোনো বিকল্প নেই। আপনি যদি একজন এসইও বিশেষজ্ঞ হতে পারেন, তাহলে আপনি এর মাধ্যমে অনলাইনে ভালো পরিমাণ আয় করতে পারবেন। 

 

এই ক্ষেত্রটি বর্তমানে বাংলাদেশে খুবই জনপ্রিয়। অনেক SEO বিশেষজ্ঞ Fiverr, Upwork এবং SEOClerk সহ বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে কাজ করছেন এবং বিপুল পরিমাণ অর্থ উপার্জন করছেন।

 

বর্তমানে, অনলাইন চাকরির মধ্যে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। সার্চ ইঞ্জিন অপ্টিমাইজেশান শেখার মাধ্যমে যে ধরনের কাজ পাওয়া যায়:

▪ ব্যাকলিংক তৈরি করা

▪ কীওয়ার্ড রিসার্চ

▪ লোকাল এসইও

▪ অন-পেজ এসইও

▪ পেজ স্পিড অপ্টিমাইজেশান ইত্যাদি

 

03. ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এবং গ্রাফিক্স ডিজাইন

বাংলাদেশে অনলাইন চাকরির মধ্যে ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এবং গ্রাফিক্স ডিজাইন দুটি অত্যন্ত চাহিদাপূর্ণ খাত। এই দুটি ক্ষেত্রের বৃহত্তর সুযোগ আছে. এগুলোতে কাজ করতে চাইলে বিশেষ কোর্সের মাধ্যমে ভালোভাবে শিখতে হবে।

অবশ্যই, আপনি আগে থেকে সহজ উন্নয়ন এবং নকশা কাজ শুরু করতে পারেন। এভাবে সম্পূর্ণভাবে কাজ শেখার আগে মার্কেটপ্লেসে কিছু ইতিবাচক রেটিং পাওয়া যেতে পারে। যাইহোক, যদি আপনি মনে করেন যে এটি আপনার শেখার বাধা দিচ্ছে, আমি আপনাকে প্রথমে কোর্সটি সম্পূর্ণ করার পরামর্শ দেব।

 

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এবং গ্রাফিক ডিজাইন উভয়ই খুব লাভজনক। কোর্সগুলি শেষ করার পর, যে কোনও ব্যক্তি এমনকি একটি বড় সংস্থার সাথেও কাজ করতে পারে।

 

ওয়েব ডেভেলপমেন্ট এবং ডিজাইনের অনেক ধরনের কাজ আছে যেমন-

▪ ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্ট

▪ মোবাইল অ্যাপ ডেভেলপমেন্ট

▪ প্লাগইন তৈরি

▪ ওয়ার্ডপ্রেস ডেভেলপমেন্ট

▪ লোগো ডিজাইন

▪ টি-শার্ট ডিজাইন ইত্যাদি

 

04. বিষয়বস্তু লেখা

বিষয়বস্তু হল ডিজিটাল মার্কেটিং এর প্রাণ। সংবাদপত্র, ব্লগ, বা অধিভুক্ত বিপণন সব বিষয়বস্তু প্রয়োজন. তাহলে বুঝতেই পারছেন, বর্তমান সময়ে এই ক্ষেত্রটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। 

আপনি এমন কোন ওয়েবসাইট পাবেন না যেখানে কোন বিষয়বস্তু নেই। আপনি বিভিন্ন অনলাইন মার্কেটপ্লেসে বা অফলাইন ক্লায়েন্টদের সাথে বিষয়বস্তু লেখার কাজ করতে পারেন।

কন্টেন্ট রাইটিং বাংলাদেশসহ বিশ্বের সব দেশেই একটি অত্যন্ত জনপ্রিয় অনলাইন কাজ। আপনার যদি লেখার প্রতি ভালো আগ্রহ থাকে তাহলে আমি অবশ্যই বলব আপনি কনটেন্ট রাইটিং করেন। নিয়মিত লেখালেখির মাধ্যমে আয়ের পাশাপাশি অনেক কিছু জানতে পারবেন। সুতরাং, এটি শিক্ষার্থীদের জন্য একটি ভাল পছন্দ হতে পারে ।

 

05. ভার্চুয়াল সহকারী

একজন ভার্চুয়াল সহকারী যে কোন জায়গা থেকে একটি কোম্পানি বা ব্যক্তির প্রশাসনিক কাজ সম্পাদন করে। এই কাজটি পেতে আপনার দরকার ওয়ার্ড প্রসেসিং দক্ষতা, কম্পিউটার দক্ষতা, ভালো যোগাযোগ দক্ষতা, দ্রুত সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা, যেকোনো পরিস্থিতি সামলানোর ক্ষমতা এবং শেখার আগ্রহ। আপনি Fiverr এবং Upwork এর মত বিশিষ্ট অনলাইন মার্কেটপ্লেসে ভার্চুয়াল সহকারী হিসেবে কাজ করতে পারেন ।

ভার্চুয়াল সহকারী যে কাজগুলি করতে পারে:

▪ ইমেল পরিচালনা

করুন ▪ ফোন কল করুন

▪ গ্রাহক পরিষেবা প্রদান করুন

▪ একটি অ্যাপয়েন্টমেন্ট নির্ধারণ করুন

▪ পণ্য প্রচার

▪ ইমেল বিপণন

▪ ডেটা এন্ট্রি

▪ সোশ্যাল মিডিয়া হ্যান্ডলিং, ইত্যাদি

চূড়ান্ত শব্দ

বর্তমানে বাংলাদেশের শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন ধরনের অনলাইন চাকরি করে। আমরা উপরে পাঁচটি জনপ্রিয় এবং মানসম্মত অনলাইন কাজের বিবরণ দিয়েছি।

আশা করি, এই নিবন্ধটি আপনাকে একজন বাংলাদেশী ছাত্র হিসাবে আপনার জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত এবং নিখুঁত অনলাইন চাকরি খুঁজে পেতে সাহায্য করবে। তবে আপনি যাই করুন না কেন, শুরু করার আগে আপনার দক্ষতা বিকাশের কোন বিকল্প নেই।

 



*

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন (0)
নবীনতর পূর্বতন